আরেকটা ভোর

ভোর হতে না হতেই সরব হয়ে উঠলো সারা দেশ
চেনা জানা ভূবন হয়ে উঠলো অচেনা।
ছোপ ছোপ রক্তের দাগ সবুজ ঘাসকে করলো লাল
ঘর থেকে সাত সকালে যে ছেলে বেরিয়েছিল
ফিরে যাওয়া হলোনা মায়ের কোলে
তার ছিন্ন ভিন্ন দেহ তখন মেডিকেলের বারান্দায়।

গতকাল সকাল থেকে উন্মাদনা ছিল
ছিল কোটি কোটি মানুষের অপেক্ষার পালা
যে ভোর পেরিয়ে এলাম কেউ সেই ভোরের অপেক্ষা করেনি
অপেক্ষা করেছিল একটু শান্তির একটু দাবী আদায়ের
চল্লিশ বছর যে দাবী অন্তরের মধ্যে
আগুনের মত দাউ দাউ করে জ্বলেছে।

সকাল গড়িয়ে দুপুর এবং তার কিছুক্ষণ পর
চার দিক থেকে আনন্দ মিছিল বের হলো
পতাকার লাল সবুজ রঙে রাঙালো গোটা দেশ
সেই সাথে কারো কারো বুকের মধ্যে জ্বলে উঠলো হিংসার আগুন
সন্ধ্যার অন্ধকারে সেই আগুনে তারা জ্বালিয়ে দিল সারা দেশ
মুহূর্মূহু গোলা বর্ষণে কেপে উঠলো সবুজ জমিন
স্থানে স্থানে লুটিয়ে পড়লো কত মায়ের আদরের দুলাল।

ঘোষণাটা শোনার পরই এতো কিছু ঘটে গেল
বিউগলে বেজে উঠলো করুণ সুর
মাথায় কাফন বেধে একদল নেমে পড়লো রাস্তায়
আরেক দল ঢোল বাজিয়ে আনন্দ মিছিল করলো
কিছুক্ষণের মধ্যে আকাশ বাতাস ছাপিয়ে ভেসে আসলো কান্নার সুর
লুটিয়ে পড়লো কত প্রাণ সবুজ জমিনে।

আমরা এখন চরম শঙ্কার মধ্যে বসবাস করছি
ভাবতে পারছিনা সেই সময় কি ঘটতে চলেছে
যখন ঘোষনা শুনেই লাশের সারি জমে রাস্তায়
তখন ঘোষণার বাস্তবায়ন না জানি দেশ রক্তগঙ্গায় ভেসে যায়।

সামনে যে ভোর আসছে তার পরিণাম আমাদের জানা নেই
সেই ভোরের আলো আমাদের চোখে লাগার আগেই
আমাদের ঠিকানা কোন মেডিকেল কিংবা শবাগারে হবে কিনা
সে কথা কেউ জোর দিয়ে বলতে পারিনা।

২ মার্চ ২০১৩ দুপুর ১২.০০

আপনাকে কমেন্টস করতে হলে অবশ্যই লগইন করতে হবে লগইন

বিষয় ভিত্তিক পোষ্টগুলো

কারিগরি সহায়তায়:

বিজ্ঞাপন

প্রবেশ - কপিরাইটঃ ২০০৭ থেকে ২০১৪ | কিশোরগঞ্জ ডট কম