ডেওয়া

আমার প্রচলিত নাম ডেওয়া । আমার বৈজ্ঞানিক নাম  Artrocurpus lakoocha (Moraceae) Monkey jack গ্রামের হাট-বাজারে বর্ষাকালে আমার এবড়োখেবড়ো কমলা রঙের ফল দেখতে পাওয়া যায়। খেতে টক- মিষ্টি । কাঁঠালের মতো ছোট ছোট কোয়া ভর্তি আমার ফল। কথায় আছে ডেওয়া ডেফল টক লাগে নারকল।  মানে আমার টক ফল খেলে নাকি মিষ্টি নারিকেল চুকা লাগে । আমার সম্বলকৃত নামঃ লকুচ, কষায়ী, শালাশুরা, দৃঢ় বঙ্কল, কার্শ্য, শূর, স্থুলস্কুন্ধ ও অপুষ্প ফলদন্ড। অপুষ্প ফুলদন্ড কারণ আমার ফুল দেখতে সাধারণ ফুলের মতো নয়, অনেকটা কাঁঠালের মোচার মতো।

আসলে এই ছোট ছোট মোচা অনেক ফুলের সমষ্টি। কাঁঠাল ও আমি একই গণের অন্তর্ভূক্ত। আমার আদি জন্মস্থান মোটামোটি ভাবে বলা চলে বঙ্গবর্ম এলাকা। বর্মায়  আমার নাম মাইয়াক লুয়াং । মার্চ মাসে আমার প্রায় পাতাহীন ডালপালায়  ফুল আসে আর আগষ্ট মাসে ফল পাকে।  গুন পর্যায় আমার পাকা ফল তিক্ত কষার রস। উষ্ণবীর্য, লঘুপাক, কফদোষনাশক, দাহজনক ও ফল সংগ্রাহক।

নব্যেও সমীক্ষায় আমার ফল ও ছালে  আরো কয়েকটা গুনের কথা শোনা যায়। লিভার জনিত রোগে বিশেষ উপকার পাওয়া যায়। ছালের গুড়া গায়ের চামড়ার রুক্ষতা দূর করে। ইউনানী চিকিৎসায় ফলের বীজ শিশুদের বিরেচনার জন্য ব্যবহার করে থাকে। আমার ফল ও গাছের রসকষে অনেক রাসায়নিক দ্রব্য আছে।  যেমনঃ ট্যানিন, স্টেরোকিটোন ও আরটোস্‌টিনোন। তবেও সাবধান কাঁচা ফল খেতে নেই। উল্ল্যেখ আছে কাঁচা ফল ত্রিদোষজনক, পেটের বায়ু স্তম্ভিত হয়ে যায় এবং শুক্রনাশক। আমাকে অবহেলা করা কার সাধ্য।

তথ্য সূত্রঃ বাংলার বনফুল

নওয়াজেশ আহমদ

 

আপনাকে কমেন্টস করতে হলে অবশ্যই লগইন করতে হবে লগইন

বিষয় ভিত্তিক পোষ্টগুলো

কারিগরি সহায়তায়:

বিজ্ঞাপন

প্রবেশ - কপিরাইটঃ ২০০৭ থেকে ২০১৪ | কিশোরগঞ্জ ডট কম