তাড়াইল উপজেলা

কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলাটির আয়তন ১৪১.৪৬ বর্গ কি.মি.যা উত্তরে কেন্দুয়া এবং মদন উপজেলা,দক্ষিনে করিমগঞ্জ উপজেলা;পূর্বে ইটনা উপজেলা  আর পশ্চিমে নান্দাইল এবং কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলা দ্বারা বেষ্টিত।

প্রধান নদীঃ

নরসুন্দা, বাউরি, বাথাইল।

তাড়াইল শহরঃ

শহরটিতে ১টি মৌজা রয়েছে।শহরটির  আয়তন ২.৭০বর্গ কি.মি. এবং লোকসংখ্যা ৭৪৮৭ জন; পুরুষ ৫২.৩২%, মহিলা ৪৭.৬৮%।জনসংখ্যার ঘনত্ব ২৭৭৩/ বর্গ কি.মি.।শহরের স্বাক্ষরতার হার ৩৫.৫%।এ শহরে ১টি ডাকবাংলো আছে।

প্রশাসনঃ

তাড়াইল থানা বর্তমানে একটি উপজেলা, যা প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯১৮ সালে।এতে ৭টি ইউনিয়ন পরিষদ, ৭৫টি মৌজা, ১০৪টি গ্রাম আছে।

প্রত্নতাত্বিক নিদর্শন ও ভগ্নস্তুপঃ

জাওয়ার সাহেব বাড়ি মসজিদ ও পুরুয়া গ্রামের মসজিদ(মোঘল আমল)।

জনসংখ্যাঃ

মোট জনসংখ্যা ১৩৮৪৮৮ জন; পুরুষ ৫১.৬০%,মহিলা ৪৮.৪০%, মুসলিম ৯৩.৫২%, হিন্দু ৫.৭১%, বৌদ্ধ ০.৩১%, খ্রীস্টান ০.৩২% এবং অন্যান্য ০.১৪%।

ধর্মীয় প্রতিস্ঠানঃ মসজিদ ১৬৭টি,মন্দির ৭টি,মাজার ২টি, তার মধ্যে বিশেষ উল্যেখযোগ্য হচ্ছে সেকান্দারনগর মসজিদ, তাড়াইল বাজার বড় মসজিদ।

স্বাক্ষরতা এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানঃ

গড় স্বাক্ষরতা ১২.৬০%; পুরুষ ২০.২%, মহিলা ৩.৭%।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানঃ

কলেজ ১টি, উচ্চ বিদ্যালয় ৮টি,জুনিয়র হাই স্কুল ১টি, মাদ্রাসা ৬টি, সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ৪৬টি, কমিউনিটি বিদ্যালয় ২০টি। উল্লেখযোগ্য পুরনো প্রতিষ্ঠান তাড়াইল পাইলট হাই স্কুল(১৯৪৫)।

সাংস্কৃতিক সংগঠনঃ

সাংস্কৃতিক সংগঠন ক্লাব ২টি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন ২০টি,সিনেমা হল ২টি, সার্কাস পার্টি ১টি,শিক্ষা সংগঠন ১টি, খেলার মাঠ ২১টি।

প্রধান পেশাসমূহঃ

কৃষি ৪২.৬৯%,মাছ ধরা ২.৫১,কৃষি মজদুরি ২৮.৪৯%, দিনমজুর ৩.৮৮%, ব্যবসায় ৯.২৩%, চাকুরী ২.৪৬%, অন্যান্য ১০.৭৪%।

কৃষকের মাঝে জমির বন্টন ৪২.১০% ভূমিহীন, ৪১.৬৮% ছোট, ১৪.৭৩%মাঝারী, ১.৪৯% ধনী চাষী।

জমির মূল্যঃ প্রথম মানের ০.০১ হেক্টর জমির মূল্য প্রায় ৪০০০টাকা।

প্রধান শস্য ধান,গম,পাট,সরিষা।

বিলুপ্ত বা প্রায় বিলুপ্ত শস্য তিল,তিসি,আমন ধান(বাউয়া) ও ডালের বিভিন্ন জাত।

প্রধান ফল আম,লিচু,কুল।

যোগাযোগ ব্যবস্থাঃ পাঁকা রাস্তা ৩৫ কি.মি.,আধাপাঁকা ১২কি.মি. এবং মাটির রাস্তা ২০৯কি.মি.।জলপথ ১১ নর্টিক্যাল মাইল।

ঐতিহ্যবাহী যানবাহনঃ

পাল্কি,ঘোড়ার গাড়ি এবং গরুর গাড়ি।এই যানবাহনগুলো প্রায় বিলুপ্ত।

ডেইরী ফার্ম ও পোল্ট্রীঃ

মাছের খামার ২১টি,পোল্ট্রী ৩৩টি,হ্যাচারী ১টি।

শিল্পকারখানাঃ বরফ কল ৫টি, স’মিল ৩টি, রাইস মিল ১৫টি, ওয়েল্ডিং ৭টি, সাবানের ফ্যাক্টরী ১টি, বেকারী ৩টি।

কুটির শিল্পঃ

বাঁশের কাজ ২৫৫, স্বর্ণকার ২৮,কামার ৫৫, কুমোর ৭২,কাঁঠের কাজ ৫০,দর্জি ১৫০।

হাট, বাজার,মেলাঃ

মোট হাট বাজার ৭টি;তার মধ্যে বিশেষ উল্লেখযোগ্য হাট-বাজার হচ্ছে তাড়াইল,জাওয়ার,পুরুয়া, তালঝংগা, রাউতি, বানাইল;মেলা ৩টি(অষ্টামী মেলা,বারুনি মেলা, রথযাত্রা মেলা)।

প্রধান রপ্তানীজাত পণ্য ধান, পাট, ও সরিষা।

এন.জি.ও কার্যক্রমঃ কার্যত গরুত্বপূর্ন এন.জি.ও গুলো হচ্ছে ব্র্যাক, আশা, স্বনির্ভর, ও প্রকাশ।

স্বাস্থ্য কেন্দ্রসমূহঃ

উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্র ১টি, পল্লী স্বাস্থ্য কেন্দ্র ২টি, পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ৪টি।

3 Responses for “তাড়াইল উপজেলা”

  1. tofeal ahamed বলেছেন:

    জোয়ার হবে- জাওয়ার, এবং পারুয়া হবে-পুরুয়া , বাউতি হবে-রাউতি ।জমির মূল্য হাস্যকর ।পরিসংখানগত তথ্য আপডেট করা উচিত।তথ্য গুলি মনে হয় পুরাতন সংস্করনের বাংলা পিডিয়া হতে। ওয়েব সাইটি দেখে ভাল লাগলো । ।+++++++++++++++++++++++

    • কিশোরগঞ্জ ডট কম ডেস্ক বলেছেন:

      বানান গত ভূল সংশোধন করা হলো । সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ । তথ্যগত সংশোধন জমির মূল্যের ক্ষেত্রে পরিবর্তন করা হয়নি । আপনি চাইলে তথ্যগত সহায়তা দিতে পারেন । কেননা কিশোরগঞ্জ ডট কম অলাভজনক একটি সামাজিক সেচ্ছাসেবী পোর্টাল – আপনার সহযোগিতা অব্যাহত রাখুন । আপনাকে আশেষ ধন্যবাদ।

  2. ফ্রেজার বলেছেন:

    কিছু তথ্য ঊইকিপিডিয়া থেকে নেয়া হয়েছে – আমাদের একজন ব্যবহারকারী ইংরেজী থেকে বাংলায় কনভার্ট করে পোষ্ট দিয়েছেন। তাই স্থানের ক্ষেত্রে বানান গত কিছু ভূল হয়েছে ।

আপনাকে কমেন্টস করতে হলে অবশ্যই লগইন করতে হবে লগইন

বিষয় ভিত্তিক পোষ্টগুলো

কারিগরি সহায়তায়:

বিজ্ঞাপন

প্রবেশ - কপিরাইটঃ ২০০৭ থেকে ২০১৪ | কিশোরগঞ্জ ডট কম