স্যালুট জাঁ ক্যুয়ে ! – অমি রহমান পিয়াল

৩ ডিসেম্বর ১৯৭১ । ভারত আক্রমণ করে আমাদের মুক্তিযুদ্ধকে তুমুল গতি দেয় পাকিস্তান। আর ১৩ দিন পরই মিত্রবাহিনীর হাতে ঢাকার পতন, স্বাধীন হয়ে যায় বাংলাদেশ। একই দিন আরেকটি চাঞ্চল্যকর ঘটনা ঘটে। প্যারিসের অর্লি বিমানবন্দরে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের একটি বোয়িংয়ের নিয়ন্ত্রণ নেন জাঁ ক্যুয়ে নামে এক ফরাসি যুবক। না, টাকা-পয়সা কিছু দাবি করেননি।

অবিলম্বে ২০ টন মেডিকেল সামগ্রী ও রিলিফ প্লেনটিতে তোলা না হলে এটি বোমা মেরে উড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দেন তিনি। আর সেগুলোর গন্তব্য হবে পূর্ব পাকিস্তান। স্বাধীনতার জন্য লড়তে থাকা বাংলাদেশে।

[ ফুটেজের ধারাবর্ণনার ইংরেজী অনুবাদ:]

“This young 28 year old boy has spent the night in jail. He is called Jean Quai and is an old OAS who has fought then in Biafra and in Yemen and he wanted to be an help to bengali refugees. That is the reason why yesterday, during 8 hours, he has immobilized a pakistani Boeing. I figure out that some among you have followed this lets call it extraordinary, suspense the whole afternoon, due to the direct cameras of Jean Claude Ditierre et d’Armand Vande, and, i must add it was itself an event, because for the first time, the television did present directly an event in a continue way, same as till now the radio channels.

Anyway, to come back to this very surprizing adventure of yesterday, Hervé Chabalier has remade the film of what occured yesterday afternoon. It was at the time 17h05, moment where Chabalier will begin his story, and it had been 6 hours while the Boeing 720 had been immobilized in Orly airport. Since 11h50, the young air terrorist threatened the cockpit pilot with his weapon, a gun. He is eager to 20 metric ton of medicine, for the bengali population, or else he “is to be blast the whole plane”. 17h15 the french authorities accept the conditions of Janquet, the first medicines have already landed in Orly airport, the terrorist accept than 8 passengers, a child among them, leave the plane.

These passengers, that you can see now, will be directly transported to Paris : the journalists won’t be able to reach them. On the runway, the loading of medicine begins. Anti ear infection, powder milk essentialy. 19 hour a second truck full of medicine park near the plane. But this time, the warehousmen are disguised cops. This man who dirigate the conductor of the truck, on the right of your screen, will arrest in a few time the air pirat. Ideed the disguised policemen transport into the cockpit boxes of penicillin and take advantage of a moment of unawareness of the air pilot in order to belt him and master him.

The last passengers leave the plane, go down the gangway steps hurriedly, Janquet is carried in ambulance till Orly’s police office, where he is given a first questioning. The crew go back to the air terminal, few minutes later there are the very first testimonies of passengers and policemen in front of the information cameras (Mr Peyresaube):”The young man, who looked about 24 years old, has given to the hostess, stewards and us the right to take some dinner” (Journalist):” And what was his behaviour toward you, has he diriged his gun toward you?” “Absolutely not, he was excessively full of amability, very nice” (Journalist)”Did he spoke to you?” (Mr Peyresaubes)”Oh yes he did, yes yes” (Journalist):”What did he said to you? (Mr Peyresaubes): “He said to us it was to give medicine, that we shouldnt be worried, and he has placed in the back of the plane a little girl with her mother, and then we when met the people who were carrying medicine, he has allowed to leave the old men,

” (Antoine Siblo, police officer): “We have taken advantage of an inattention moment of the boy, and because I was the closest from him, we reached him in hurry, he was surprized naturally (Jounalist)”I already know” (Antoine Siblo)”And in a reflex he pointed out his gun, myself to avoid the shoot i left in a hurry, and the bullet reached the pullover and the blazer made in setton” (Jounalist):”You were dressed up like bagagists, does the crew thought once that you all were policemen?” (Antoine Siblo):”No, I don’t think so, at no time” (Journalist):”What concerns the medicins, they were instantanely carried out of the plane, and transported to Paris, but in fact it is only a transit.” (Marquis (aristocrat title)of Agosti from the Malta order) ” These medicine were all on the order of Malta, they are all here, and we will…”

(Journalist)”What will you do of these, now” (D’Agoste)” We will, well we will carried them out to the order of Malta order, and make them land to Pakistan too, because they were themselves supposed to reach Pakistan ! “.

ঘটনাটা যখন ঘটছে পশ্চিম জার্মানির ভাইস চ্যান্সেলর উইলি ব্র্যান্ডট ফ্রান্স সফরে এসে পৌছেছেন মাত্র প্রেসিডেন্ট পম্পেদ্যুর সঙ্গে বৈঠক করতে। ক্যুয়ের দাবি মেনে বিমানে রিলিফ সামগ্রী তোলা হয়। রেডক্রস ও বিমানবন্দর কর্মীদের ছদ্মবেশে পুলিশ অবশেষে তাকে গ্রেফতার করে। শেষ হয় প্রায় পাঁচ ঘন্টার এই ছিনতাই অধ্যায়। ওষুধ এবং রিলিফ সামগ্রী অবশ্য পূর্ব পাকিস্তানে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয় ফ্রান্স এবং সেটার দায়িত্ব দেওয়া হয় অদ্রে দা মাল্তে (Ordere de Malte) নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনকে। ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের ঘটনায় তা গুরুত্ব হারায় এবং চাপা পড়ে যায়। একইদিন অবশ্য এনবিসি আর এবিসি টিভিতে ঘটনাটি প্রচার করা হয়। তাদের ফুটেজ পাইনি। তবে নিউজ জিস্ট পাওয়া গেছে, তুলে দিলাম:

Headline: Pakistan / Paris Hijack
Abstract: (Studio) Hijacker seeks medical aid for E. Pakistan refugees from Paris.
REPORTER: Walter Cronkite
(Paris, France) Frenchman Jean Quai attempts hijack for Bangladesh cause. West German Chancellor Willy Brandt arrives at Orly airport for talks with French President Pompidou during hijack incident. Police dressed as Red Cross and airport workers take hijacker. Med. supplies still to go to Bangladesh.
REPORTER: Ed Bradley (ORTF newsfilm)
Broadcast Type: Evening News Segment Type: News Content

NBC Evening News for Friday, Dec 03, 1971
Headline: Pakistan / Paris Hijacking
Abstract: (Studio) Hijacking in name of E. Pakistan attempted at Orly Airport.
REPORTER: John Chancellor
(Paris, France) Pakistani International Airways jet threatened by bomb unless 20 tons medical supplies loaded for Bengali refugees. Police disguised as stevedores capture hijacker.
REPORTER: Aline Saarinen
Broadcast Type: Evening News Segment Type: News

Headline: Hijacking / Pakistan Relief
Abstract: (Studio) Jet liner captured by hijacker at Paris airport. Med. supplies
for E. Pakistan demanded.
REPORTER: Harry Reasoner
(Paris, France) Pakistan International Airlines plane delayed 5 hrs. by hijacker while tons of medical supplies loaded. Police in stevedore disguise capture hijacker Jean Quai. Med. goes on to E. Pakistan. Agencies providing medical supplies to send it to E. Pakistan voluntarily.
REPORTER: John Rolfson

CBS Evening News for Friday, Dec 03, 1971
Headline: Pakistan / Paris Hijack
Abstract: (Studio) Hijacker seeks medical aid for E. Pakistan refugees from
Paris.
REPORTER: Walter Cronkite
(Paris, France) Frenchman Jean Quai attempts hijack for Bangladesh cause. West German Chancellor Willy Brandt arrives at Orly airport for talks with French President Pompidou during hijack incident. Police dressed as Red Cross and airport workers take hijacker. Med. supplies still to go to Bangladesh.
REPORTER: Ed Bradley (ORTF newsfilm)

এই ঘটনার কয়েকদিন আগে ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে জনমন গড়তে এক বিশ্বসফরে বের হন। তিনি ফ্রান্সে যাওয়ার পর বিখ্যাত ফরাসি সাহিত্যিক আন্দ্রে মারলোও বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে অস্ত্র ধরার ইচ্ছে জানিয়ে বিবৃতি দেন:

এইখানের খবরটা ছিল-

Captured Man Sought Help For Refugees- PARIS (AP) —

Disguised as mechanics and Red Cross workers, police Friday night overcame a hijacker who bargained for the live* of 28 persons in a Pakistani jetliner against 20 tons of medicine he demanded for Pakistan refugees. The hijacker, a 28-year-old French electronics technician identified as Jean Kay, fired a single shot as the police rushed him six hours after he took over the Pakistan International Airlines 720B at Orly Airport. The bomb with which he threatened to destroy the plane turned out to be a harmless box filled with electrical wires. Kay was seized after more than a ton of the medicine he demanded had been loaded into the plane, parked on the brightly lit apron of Orly’s main runway. It was virtually at live same hour that India was
charging Pakistan with having launched a full-scale war over the Bengali issue.
The French Red Cross and the Order of the Knights Hospitaliers of Malta,, who collected the medicines, announced that the whole 20 tons would be sent to the Bengali refugees “but by another route and other means.” Police described Kay’s capture this way: While four policemen wearing Red Cross armbands loaded medicine at the rear of the aircraft, two others dressed as mechanics entered the cockpit through a small trapdoor. As the”, four’ at the rear pounced on Kay, he fired his 9mm pistol once, hitting a policeman’s hand. Andre Peyresaubes, a French
travel agent who had boarded :he jet for its 1150 a.m. takeoff ror Karachi, said:
“We had just left the boarding area when the hijacker went Into the cockpit and ordered the pilot to cut his en- Bines. He threatened him with his gun. The Pakistani passengers seemed terrified because he said he was going to let everybody except them off in Belrut before heading for India. “The crew kept cairn throughout. The pirate recruit ed an interpreter among the passengers because the pilot spoke English. He was courteous and friendly and he let the passengers eat and move aboui pretty much as they wanted.

এই লিঙ্ক থেকে আর উইকিতে এটা পাওয়া গেছে। ট্রান্সলেট পেজের লিঙ্ক
এখানে হাইজ্যাক সম্পর্কে লেখা হয়েছে:

In 1971 , John Kay is in Paris where he probably ended his book The Weapon in the heart, in his studio’s 15th arrondissement , near the home of his father, Colonel in retirement . One of his idols, Andre Malraux , when he is 70 years old, was ready to fight for freedom from the so-called Bengal at the time, or ” Pakistan Eastern “. To defend the oppressed people seeking to split Pakistan , the “country enraged by his independence,” the former minister addresses a “Letter to President Nixon” in the newspaper ” Le Figaro “of December 17 (page 1 and 3) and says he wants it from itself. He finally gives up, but not John Kay: 3 December 1971 , the mercenary takes hostage the passengers and crew of an aircraft , flight 711 of the Pakistan International Airlines at Orly , demanding drugs for Bangladesh in threatening them with a gun and a bomb, contained in a bag from which issue the son electrical firing. He was arrested a few hours, when the alleged shipment of drugs, a police decoy to board, not without having shot one of his assailants. The bag was filled as the pirate of books, a bible and an electric razor from which came the famous son, who simulated a bomb.

এ ব্যাপারে ব্লগার কাউসার রুশোর পোস্ট থেকে খানিকটা তথ্য সংযুক্তি:

বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামের পক্ষে বহু ধরনের মানুষ বিচিত্র ভূমিকা পালন করেছিলেন এবং তাঁদের একজন ছিলেন জঁ ইউজিন পল কে। অ্যাডভেঞ্চারপ্রিয় এই ফরাসি লেখক জীবনে বিবিধ অভিজ্ঞতার অধিকারী হয়েছিলেন, চিন্তা-চেতনার দিক দিয়েও ছিলেন বিচিত্রমুখী। গোড়াতে তিনি ছিলেন ফরাসি সেনাবাহিনীর সদস্য, তারপর সেনাবাহিনী ত্যাগ করে যোগ দেন কুখ্যাত ওএএসে; যে গোপন বাহিনী মনে করত আলজেরিয়া হচ্ছে ফ্রান্সের অবিচ্ছেদ্য অংশ, তা কখনো হাতছাড়া হতে দেওয়া যায় না। আঁদ্রে মালরোর রচনা পড়ে বোধোদয় হয় পল কের। তিনি ওএএস ত্যাগ করে হয়ে ওঠেন বিশ্বপথিক। তবে পুরোনো মতাদর্শের জের একেবারে কাটিয়ে উঠতে পারেন না। স্পেন, লিবিয়া ও বায়াফ্রায় বিভিন্ন দক্ষিণপন্থী গোষ্ঠীর সঙ্গে ভিড়ে যান।

একাত্তর সালে বাঙালির মুক্তিসংগ্রামের বার্তা তাঁকে আলোড়িত করেছিল। এরপর আঁদ্রে মালরো যখন বাংলাদেশের পক্ষে লড়বার ব্রত ঘোষণা করেন, তখন গুরুবাক্যে বিশেষ অনুপ্রাণিত বোধ করেন পল কে। ৩ ডিসেম্বর তিনি প্যারিসের অরলি বিমানবন্দরে ব্যাগে বোমা নিয়ে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইনসের ফ্লাইট ৭১১ বিমানটি দখল করতে সমর্থ হন। তাঁর ব্যাগ থেকে বের হয়ে আসা বৈদ্যুতিক তার জানান দিয়েছিল ভেতরে বহন করা বোমার। তিনি বাংলাদেশের মুক্তিসংগ্রামীদের জন্য জরুরি ওষুধ বহন করে নিয়ে যাওয়ার দাবি জানিয়েছিলেন। কয়েক ঘণ্টা পর ওষুধের কার্টন বোঝাই করবার অজুহাতে পুলিশ বিমানে ঢুকে তাঁকে পরাভূত করতে সমর্থ হয়। ব্যাগ খুলে দেখা যায় সেখানে রয়েছে কতক বই, এক কপি বাইবেল এবং একটি ইলেকট্রিক শেভার।

এই ঘটনার পরপরই উপমহাদেশে শুরু হয়েছিল সর্বাত্মক যুদ্ধ। সেই ডামাডোলে হারিয়ে গেল পল কে-র ঘটনা। অবশ্য তাঁর বিরুদ্ধে আনা মামলা চলেছিল বেশ কিছুকাল। আদালতে অভিযুক্তের পক্ষে দাঁড়িয়েছিলেন আঁদ্রে মালরো স্বয়ং। অভিযোগ থেকে খালাস পাওয়া পল কে আবারও ঘুরে ফিরেছেন অ্যাডভেঞ্চারের খোঁজে। ১৯৮১ সালে তাঁকে দেখা গিয়েছিল হিমালয় এলাকায় তপস্যারত, এরপর কিছুকাল ছিলেন অস্ট্রেলিয়ায়, পরে আবারও তাঁকে দেখা গেল কলকাতায়, সেখানে জননিরাপত্তা ভঙ্গের অভিযোগে কিছুদিন কাটান কারাগারে। ভারত থেকে বহিষ্কৃত হয়ে ১৯৮৫ সালে তিনি যান ওয়েস্ট ইন্ডিজে। এরপর তাঁর আর খোঁজ মেলেনি।

দ্য টেররিস্ট লিস্ট নামে এই বইয়ে ক্যুয়ের নাম দেখা গেল।লেখকদ্বয় এডোয়ার্ড এফ মিকোলাস এবং সুসান সিমন্স।শাস্তি হিসেবে পাঁচ বছরের জেল হয়েছিল ক্যুয়ের।  উইকির লিঙ্কে একটা ইন্টারেস্টিং ব্যাপার দেখলাম,বিচারকালীন সময়ে আঁদ্রে মালরো ক্যুয়ের পক্ষ্যে সাক্ষ্য দিয়েছিলেন।

André Malraux , the great defender of Bangladesh emerging, will testify on his behalf in his trial in October 1973 [11] . Il est condamné à 5 ans de prison avec sursis; il est donc libéré. He was sentenced to five years suspended sentence, so it is released. Son avocat était Jean-Marc Varaut. His lawyer was Jean-Marc Varaut

সংযুক্তি: ৭ আগস্ট ‘৭১ বাংলাদেশ সংগ্রামী বুদ্ধিজীবি পরিষদের প্রধান জহির রায়হানকে নীচের চিঠিটি লেখেন মালরো:

জানিনা সুশীল সমাজ নিয়ে এটা আবার ছিঃ ছিঃ করবে কিনা! বিমান ছিনতাইয়ের মতো ভীষণরকম দন্ডনীয় অপরাধমূলক কার্যক্রম আমাদের মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে জুড়ে দিয়ে আবার কলঙ্কিত করছি না তো একে! শালারা….।  স্যালূট জাঁ ক্যুয়ে।

ব্লগঃ অমি রহমান পিয়াল

আপনাকে কমেন্টস করতে হলে অবশ্যই লগইন করতে হবে লগইন

বিষয় ভিত্তিক পোষ্টগুলো

কারিগরি সহায়তায়:

বিজ্ঞাপন

প্রবেশ - কপিরাইটঃ ২০০৭ থেকে ২০১৪ | কিশোরগঞ্জ ডট কম