আর্কাইভ হতে, বিভাগঃ ‘কবিতা’

ভালো থাকুক একাকিত্ম

ভালো থাকুক একাকিত্ম

যখন কেউ একা থাকে। চারপাশে কেউ নেই। নিস্তব্দ সবকিছু। তখনই জীবনের আলো ঝলমলের সাথে অন্ধকার জীবনের কতশত কথা স্মৃতির গভীর থেকে উকি দেয়। চলে মনের সাথে মনের গভীর হাসীকান্নার খেলা। সূ:খের স্মৃতি গুলো যখন মনের ছবিতে ভেসে উঠে তখন রং ধনুর মতো রঙ্গিন হয়ে উঠে মন। প্রশান্তীর একরাশ হাসি ফোটে উঠে ঠোঠে। আহা মানব মন, […]

আমার হৃদয় নীড়ে

আমার হৃদয় নীড়ে

বন বনানী শত গিরিবর পাহাড়; সৃজিত লক্ষ প্রাণ মানব যার সেরা দীপে ভরে দিলে ভূলোক আলোকে; বৃক্ষলতার প্রাণ মাটিকে দিলে সপে পল্লবও তাই তোমারই মালা জপে গগনে আঁটলে চাঁদ, ঝলমলে তারা। বিচিত্র কত যে অপরূপ ছবি এঁকে রইলে তুমি লুকিয়ে অদৃশ্য আড়ালে; সাড়া দাও আবার প্রিয়জনের ডাকে বেঁধেছো ঘর সকল অন্তর অতলে। ভালোবেসে করেছো সৃজন […]

গুচ্ছ কবিতা – মধ্যবিত্ত আকাশ

গুচ্ছ কবিতা –  মধ্যবিত্ত আকাশ

মধ্যবিত্ত আকাশ ললিপপের মতো সকালের রোদ খেয়ে কী আর মন ভরে? তাই কুয়াশার চাদরে ঢাকা শীতবুড়িকে গোপনে চুম্বনে চুম্বনে উষ্ণ করে তুলি আর মৃদু স্বরে বলি – পৃথিবীতে বারুদ নয় ভালোবাসার বৃষ্টি বর্ষিত হোক; ভিখিরির থালার মতো আমাদের মুখ আদমের নিঃসঙ্গতাকে পুনঃপুন আলিঙ্গন করে। গন্ধমের নেশায় এখনও অস্থির পৃথিবীর কূটনীতিক ক্যানভাস। চাহিদার লোনাজলে ভ্রষ্টতার তরী […]

ঈশ্বর হওয়ার পথে

ঈশ্বর হওয়ার পথে

দুটি কবিতা: ঈশ্বর হওয়ার পথে শতাব্দী ধরে ঘুঙুরপড়া অন্ধকার গলাধকরণ করে এখন আছি সময়ের ন্যাংটো পথে কেউ জানলেই না- শ্মশানের মতোই শব্দহীন আমার ভেতর ক্ষরণের বাজার বসে রোজ যৌবনের গায়ে হলুদ মেখে আমি এখন ঈশ্বর হওয়ার পথে। কামের নেশা ইতিহাসের দীর্ঘ জ্যামেতিক সড়ক পাড়ি দিয়ে পৃথিবীর দোরগোরায় ভিখু হয়ে বসে আছি- পুরাণের ভিতর থেকে কামের […]

একগুচ্ছ প্রেমের কবিতা

একগুচ্ছ প্রেমের কবিতা

যদি একটু অভয় দিতে… কিছু বলার ইচ্ছে ছিল তোমার চোখের ভেতর দিয়ে বিশ্ব দেখার ইচ্ছে ছিল অনুভূতির সমুদ্র্রে স্নান করার বাসনা লালন করছি শতাব্দীকাল থেকে ধূতির রঙের মত সাদামেঘ অবলীলায় আল্পনা এঁকে যায় তোমার সুশ্রী মুখে ; পৃথিবীর সব কামিনী ফুল গন্ধ ছড়াতে ভুলে যায় তোমার রূপের জৌলুস্য দেখে তোমার চাহনিতে হার মানে পৃথিবীর সব […]

ঘাসফড়িং

ঘাসফড়িং

সবুজ ঘাসের পৃষ্ঠ ছুঁয়ে ঘাসফড়িং রাধিকার দেশে, স্বপ্নের বুনট চলে সময়ের ডেকোরেসনে; নীরবতার  ক্যানভাসে নতুনের প্রচ্ছদপদ স্বর্গপানে-নতুনের বার্তা নিয়ে, নতুনত্ব নিয়ে। পরিচিত সেই ঘাসফড়িং ঘাসফড়িংয়ের উষ্ণ আবেদনে কিংকর্তব্যবিমূঢ় জোনাকি, সভ্যতার সব ভালবাসা গুমোট অন্ধকারে, কখনের পর কথন… সপ্তাশ্চর্যের সব রং ছুঁয়ে একাকার, হিমালয়ের ন্যায় বিশালতা আর বিজলীর মতই ক্ষণপ্রভা; একটুকরো প্রেম সমস্ত স্পন্দন ছুঁয়েও থাকে […]

হ্যান্ডস্ আপ!

হ্যান্ডস্ আপ!

জয় বাংলা! অস্ত্র হাতে একদল মানুষ ছুটে যায় -হ্যান্ডস্ আপ! হ্যান্ডস্ আপ! -উপরে হাত তুলে সোজা দাড়িয়ে যাও নয়তো কুকুড়ের মতো গুলি করে মারব! বঙ্গ মাতার ধ্বজা উড়িয়ে দেব; কটা দেশ প্রেমিক আছে দ্যাশে? পতাকা মাথায় বেঁধে দৌড়াও? -উপরে হাত তুলে দাড়িয়ে যাও; নয়তো- বয়েস কম যুবকের। রক্তগরম। মুখে তাই অন্ধের মতো বুলি – “মাতৃভাষা বাঙলা […]

এলোরে বৈশাখ

এলোরে বৈশাখ

মৈত্রী আর মিতালির দিয়ে যাই ডাক, খুশির বার্তা নিয়ে এলোরে বৈশাখ। এলোরে বৈশাখ। ব্যর্থতা-গ্লানি যত যাক মুছে যাক, সুখের বার্তা নিয়ে এলোরে বৈশাখ। এলোরে বৈশাখ। লালে লাল ফুল্ল সাজে কৃষ্ণচূড়া, অনিন্দ্য উল্লাসে জাগে বসুন্ধরা । দিগন্ত দুয়ারে দেখ স্বস্তির হাঁক, খুশির বার্তা নিয়ে এলোরে বৈশাখ। এলোরে বৈশাখ, এলোরে বৈশাখ। বৈশাখী অভ্রে মেঘ করে যখন খেলা, মনের […]

সীতার সতীত্ব

সীতার সতীত্ব

ত্রেতা যুগে দশরথ তনয় অযোধ্যায় যার আবাস, বাবার ইচ্ছায় রাম ১২ বছরের জন্য যায় বনবাস। দোসর হল ভাই লক্ষণ আর পত্নী সিতা অঙ্গনা , দশটি হায়ন তারা করে গুজরান ইতস্ততঃ মনা । ইতস্ততঃ অতিবাহনের পর এক মৃগয়া-ভূমি পায়, পন্চবটি নামের বনানীটি সিতার মনে ধরে যায় । সিতার তুষ্টে পন্চবটিতে কাটছিল তাদের ভাল , দৈবক্রমে একদিন […]

আবরাহা ধ্বংসলীলা

আবরাহা ধ্বংসলীলা

রাসুল (সাঃ) এর দাদা আঃ মুত্তালিবের সময়, ঐতিহাসিক এক মস্ত বড় আপতন ঘটে যায়। যাকে আজো স্মরনীয় করে রেখেছে কুরআন, সেটি হচ্ছে হাতি ও হাতি ওয়ালার উপাখ্যান। ‘আবরাহা আল-হাবশী’ নামে ছিল এক রাজা, তৈরি করেন তিনি ১ “আল-কুল্লায়েস” গির্জা। এটি তৈরি করার পেছনে উদ্দেশ্য ছিল তাঁর, হাজীগণ যেন গির্জায় যায় পরিবর্তে কা’বার। যার কারণে আরবের […]

বিষয় ভিত্তিক পোষ্টগুলো

কারিগরি সহায়তায়:

বিজ্ঞাপন

প্রবেশ - কপিরাইটঃ ২০০৭ থেকে ২০১৪ | কিশোরগঞ্জ ডট কম