আজমিরীগঞ্জে হাওরে বিয়ের নৌকায় দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনায় ৭ ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গতকাল বুধবার সকাল সাড়ে ৭টা থেকে সাড়ে ১০টা পর্যন্ত হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জের মিঠামইন থানা পুলিশ যৌথ অভিযান চালিয়ে ডাকাতদের গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত ডাকাতরা হচ্ছে রইছ মিয়া (৪৮), জামাল মিয়া (২২), মকছুদ মিয়া (৫৫), ফজলু মিয়া (৩৫), ইদ্রিস মিয়া (৩০), জয়নাল মিয়া (৩৮) ও মজনু মিয়া (৩৫)। তাদের সবার বাড়ি কিশোরগঞ্জ জেলার মিঠামইন উপজেলার বড়কান্দি গ্রামে।
https://i2.wp.com/www.dailykhowai.com/uploads/article/2001.jpg?w=1080

উল্লেখ্য, গত ১৮ জুলাই আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কাকাইলছেও ভেড়ামোহনা নদীতে যাত্রীবাহী একটি নৌকায় দুর্ধর্ষ ডাকাতি সংঘটিত হয়। সন্ধ্যা ৬টায় আজমিরীগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা কামালপুরগামী যাত্রীবাহী নৌকাটি কাকাইলছেও ইউনিয়নের রাহেলা গ্রামের সন্নিকটে পৌঁছলে মুখোশ পরিহিত ৭/৮ জনের একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত দল দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে নৌকার গতিরোধ করে। ডাকাতরা নৌকায় উঠে প্রথমেই নৌকা মাঝি ওয়াব মিয়ার (২৫) পিঠে দা দিয়ে আঘাত করে এবং নৌকার হ্যান্ডেল ও নৌকায় থাকা কেরোসিন ছিনিয়ে নেয়। এরপর ডাকাতরা যাত্রীদের মারধোর শুরু করে। এতে যাত্রী নুরুল ইসলাম (৭০) আহত হয়। ডাকাতরা নৌকার যাত্রী ইসহাক মিয়ার নিকট থেকে ৭ হাজার, শাহজাহান মিয়ার নিকট থেকে ৫ হাজার, নুরুল ইসলামের নিকট থেকে ২ হাজার টাকা, আক্তারুজ্জামানের নিকট থেকে চার ভরি স্বর্ণালংকার ও বিয়ের বাজারসহ প্রায় লক্ষাধিক টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে যায়।
ডাকাতির ঘটনার পরদিন কামালুপর গ্রামের শাহাজুল ইসলাম মিয়া বাদী হয়ে আজমিরীগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আজমিরীগঞ্জ থানার পুলিশ গতকাল এই অভিযান চালায়। এ সময় তাদের কাছ থেকে ডাকাতি করা কিছু কাপড় চোপড় উদ্ধার করা হয়। গ্রেফতারের পর ডাকাতদেরকে আজমিরীগঞ্জ থানায় নিয়ে এলে তারা ডাকাতির কথা স্বীকার করে এবং আজমিরীগঞ্জ থানার ওসি এনামুল হককে জানায় তারা সব টাকা ফিরিয়ে দেবে। দৃশ্যত ঘটনাটি আপোষ মীমাংসায় শেষ হয়।