কিশোরগঞ্জে গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ওয়াসিমুদ্দিন ছাত্রাবাসে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা দুই দফা হামলা চালিয়েছে। হামলায় কলেজের ভূগোল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র আবদুস সালাম আহত হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এ সময় কলেজ ক্যাম্পাস ও ছাত্রাবাসের শিক্ষার্থীদের মাঝে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। ঘটনার প্রতিবাদে ওয়াসিমুদ্দিন ও ড. এম ওসমান গণি ছাত্রাবাসের কয়েক শ ছাত্র ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করে। তারা কর্তৃপক্ষের কাছে বহিরাগত সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তার ও ছাত্রাবাসের নিরাপত্তা দাবি করে।
কলেজ সূত্র ও প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার বেলা ১টার দিকে মহব্বত নামে স্থানীয় এক সন্ত্রাসী ওয়াসিুমদ্দিন ছাত্রাবাসের ১০৪ ও ১০৫ নম্বর কক্ষের জানালার কাছে প্রস্রাব করে। এ সময় ছাত্রাবাসের ১০৭ নম্বর কক্ষের ছাত্র আবদুস সালাম ওই সন্ত্রাসীকে জানালার পাশে প্রস্রাব না করার অনুরোধ করে। সন্ত্রাসী মহ্ববত এতে ক্ষিপ্ত হয়ে ওই ছাত্রকে প্রচণ্ড মারধর করে। কিছুক্ষণ পর মহব্বতের সঙ্গে যোগ দেয় আরো কিছু সন্ত্রাসী। তখন সালামকে দ্বিতীয় দফায় ছুরি নিয়ে ধাওয়া করে তারা। একপর্যায়ে মহব্বত সালামকে ছুরি দিয়ে বেশ কয়েকবার আঘাত করে। এ সময় আহত সালাম দৌড়ে পাশের ড. ওসমান গণি ছাত্রাবাসে গিয়ে আত্মরক্ষা করে।

গুরুদয়াল সরকারি কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ ফজলুল হক ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে এ বিষয়ে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে মামলা করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ছাত্রাবাসের নিরাপত্তায় কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রয়োজনে কঠোর পদক্ষেপ নেবে। এ ব্যাপারে কিশোরগঞ্জ মডেল থানার উপ-পরিদর্শক জাহিদ হোসেন জানান, এ বিষয়ে এখন মামলা হয়নি। তবে পুলিশ ওই সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করছে।