এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের এই আসরে তর্ক করার মত যে বিষয়গুলো আছে, এডিডাসের বল জাবুলানি তার মধ্যে অন্যতম। বলটির নানা সমস্যা নিয়ে উঠছে সমালোচনার ঝড়। কিন্তু ফ্রান্সের একদল গবেষকদের মতে, এবারের বলটির সমস্যা হলো এটা বেশি রকমের নিখুঁত। খবর এএফপি-এর।
https://i0.wp.com/tech.bdnews24.com/images/imgAll/jabu0307b.jpg?w=1080
সংবাদ মাধ্যমটির বরাতে জানা গেছে, যুক্তরাজ্যের লগবরো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকদের নিয়ে এই বলটির নক্সা তৈরি করা হয় যাতে বায়ু-গতিবিদ্যার সূত্রগুলো সবচেয়ে নিখুঁতভাবে সন্নিবেশিত হয়। বাতাসে ভেসে থাকার জন্য ব্যবহার করা হয়, এডিডাসের ‘গ্রিপ’ন’গ্রুভ’ প্রযুক্তি। এমনকি বলটিকে সেলাইও করা হয় ভিতর থেকে যাতে এটি একটি নিখুঁত ও পরিপূর্ণ গোলাকার রূপ নেয়।
কিন্তু ফ্রান্সের মারসেইলি ইনস্টিটিউটের গতিবিদ্যা বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর এরিক বারটন বলটির এই বিশেষ সুবিধাটিকেই সমস্যাপূর্ণ মনে করেন। তিনি জানান, ‘আকৃতির জন্যই এটার ঘূর্ণির মাত্রা কম। বাতাসে ভেসে থাকতে পারার কারণে বলটি একটু বেশি দুরত্ব অতিক্রম করতে পারে বটে, কিন্তু এর ঘূর্ণন গতি অনিয়ন্ত্রিত।’
খুব স্বাভাবিকভাবেই এটা গোলরক্ষকদের জন্য ‘সামান্য অসুবিধাজনক’ হিসেবেই দেখা দিচ্ছে। আর এই অসুবিধাটাই জন্ম দিয়ে যাচ্ছে একর পর এক বিতর্কের। স্পেনের গোলরক্ষক আইকার ক্যাসিলাস এটাকে ‘বাজে’ বলে আখ্যায়িত করেছেন, লুইস ফ্যাবিয়ানো বলেছেন, ‘অতিপ্রাকৃত’। ম্যারাডোনা ভাবেন এই সমস্যার জন্য লং পাস দেয়া কমে যাবে।
ফিফার সেক্রেটারি জেনারেল জেরোমি ভাল্ক এ বিষয়ে বলেন, “আমরা তো বধির নই। ফিফা বলের বিষয়টি ভেবে দেখছে।’